আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

হৃদয়ের দরজা খুলে দিন!

গতকাল পড়ছিলাম উ নারদ সেয়াদের লেখা Guide to Conditional Relations. এটা হচ্ছে পট্ঠানের উপরে লেখা বই। সেখানে ভূমিকায় একটা কথা আমার খুব মনে দাগ কাটল। তিনি একটা প্রবাদবাক্য তুলে ধরেছেন – The hardest thing in the world to open is a closed mind.

অর্থাৎ দুনিয়ায় যে জিনিসটা খোলা সবচেয়ে কঠিন তা হচ্ছে একটা বদ্ধ মন।

পড়ে আমি স্তব্ধ হয়ে রইলাম কিছুক্ষণ। ভালো কোনো কিছু পড়লে এভাবে স্তব্ধ হয়ে থাকতে হয়। যাতে তা মনের গভীরে গিয়ে দাগ কাটতে পারে। সেই আঁচড়ে মন জেগে ওঠে। সে ভাবতে থাকে, মন কখন বদ্ধ হয়? সে যখন কোনোকিছুকে গভীরভাবে আঁকড়ে ধরে থাকে। কিন্তু কেন আঁকড়ে ধরে থাকে? লোভবশত ও ভ্রান্ত ধারণা বশত।

মানুষ সামান্য সুখের মোহে, লোভের বশে, কামনার বশে প্রিয়জনকে আঁকড়ে ধরে ঘর সংসার শুরু করে। সেই ঘর সংসার প্রতিপালন করতে গিয়ে পরে বুঝতে পারে কয়টা ধানে কয়টা চাল। সেটা হচ্ছে লোভবশত আঁকড়ে ধরা। কবি সাহিত্যিকরা সেই ঘর সংসারকে নিয়ে গল্প কবিতা লিখে মহিমান্বিত করতে পারেন, কিন্তু বুদ্ধ সেটাকে বলেন অসার পথ চলা। যে চলার কোনো শেষ নেই।

অন্যদিকে আছে ভ্রান্ত ধারণা। সেই ভ্রান্ত ধারণাবশত মানুষ মনে করে – আমার আপনজন, আমার দেশ, আমার জাত। তার জন্য সে হাতে তুলে নেয় অস্ত্র। সেই অস্ত্রের মুখে পড়ে ঝরে যায় কত তাজা প্রাণ। শাক্য ও কোলিয়রা যখন রোহিণী নদীর পানির হিস্যা নিয়ে পরস্পরের সাথে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে যাচ্ছিল, তখন বুদ্ধ তাদেরকে থামানোর জন্য জিজ্ঞেস করেছিলেন – কোনটার মূল্য বেশি? প্রাণের মূল্য বেশি নাকি পানির মূল্য বেশি? তারা উত্তর দিয়েছিল – প্রাণ অমূল্য।

অথচ জাত বাঁচাতে হবে, দেশ বাঁচাতে হবে – এমন ভ্রান্ত ধারণার বশীভূত হয়ে সেই অমূল্য প্রাণকে তুচ্ছ জ্ঞান করে অস্ত্র হাতে নিয়ে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে লোকজন। এই শত্রুতা এমনই ব্যাপক ও দীর্ঘস্থায়ী যে তা যেন শেষ হবার নয়। সেই শত্রুতা চলে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধরে। উদাহরণস্বরূপ যে পেঁচা জীবনে কখনো কাক দেখে নি, সেটাও দেখা মাত্রই কাকের উপরে ঝাঁপিয়ে পড়ে। অথচ পেঁচা ও কাকের মধ্যে যে শত্রুতা, তা এমনকি বিজ্ঞানীরা পর্যন্ত তার কোনো কুল কিনারা খুঁজে পান না। বুদ্ধ সেটাকেও বলেন অসার পথ চলা, যে পথ চলার কোনো শেষ নেই।

তাই মন হোক মুক্ত, অসীম আকাশের মতো উদার। তবেই হিংসার ঝনঝনানি থামবে।

রেষারেষি, কলহ বন্ধ হবে। শান্তি নামবে পৃথিবীর বুকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *