আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

১ কল্প সমান কয় বছর?

সাসপ সুত্রে (সং. নি. ২.১২৯) বুদ্ধ একটা উদাহরণ দিয়েছেন এভাবে। ধরা যাক, ১টা বড়সড় লোহার নগরী। যার দৈর্ঘ্য, প্রস্থ ও উচ্চতা হচ্ছে ১ যোজন বা ১৩ কিমি করে। সেই নগরী পুরোটাই সরিষা বীজ দিয়ে পূর্ণ করা হলো। ধরা যাক, একজন লোক প্রতি ১০০ বছর পর পর সেই নগরী থেকে একটা করে সরিষা বীজ তুলে নেয়। সেই সরিষার বীজ এক সময় ফুরিয়ে যাবে, কিন্তু তবুও কল্প ফুরাবে না। কল্প এমনই দীর্ঘ সময়।

আমরা সেখান থেকে বছরের আনুমানিক হিসাব করতে পারি। লোহার নগরীটা হচ্ছে কিউব। তার প্রতিটা প্রান্তের দৈর্ঘ্য ১৩ কিমি। তাহলে কিউবের সুত্র অনুসারে লৌহনগরীর আয়তন হয় ২.১৯৭e২১ ঘনমিমি।

উইকিপিডিয়া বলছে, সরিষার বীজের ব্যাসার্ধ ১ মিমি। তাহলে গোলকের সুত্র অনুসারে একটা সরিষাবীজের আয়তন হয় ৪.১৯ ঘনমিমি।

তাহলে সরিষাবীজের সংখ্যা হবে (২.১৯৭e২১/ ৪.১৯) = ৫.২৪e২০টি।

মোট বছর লাগবে (৫.২৪e২০x ১০০) = ৫.২৪e২২ বছর।

অন্য কথায়, ৫২,৪৩৪ বিলিয়ন বিলিয়ন বছর।

সেটা কতটুকু সময়? তুলনামূলক উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ডাইনোসরেরা বেঁচে ছিল মাত্র ৬৬ মিলিয়ন বছর আগে।

পৃথিবী কবে সৃষ্টি হয়েছে?

আমরা তা হিসেব করে বের করতে পারি।

এক কল্পের চার ভাগের এক ভাগ হচ্ছে পৃথিবীর স্থিতিকাল। তাহলে তা হয় ১৩,১০০ বিলিয়ন বিলিয়ন বছর।

একেকটা স্থিতিকালে ৬৪টি অন্তরকল্প থাকে। অন্তরকল্প মানে হচ্ছে যে সময় জুড়ে মানুষের গড় আয়ু কমে আর বাড়ে। এরকম একেকটি অন্তরকল্পে সময় লাগে ২০৪ বিলিয়ন বিলিয়ন বছর। অর্থাৎ মানুষের গড় আয়ু অসংখ্য বছর থেকে কমে দশ বছর হয়, তারপর আবার বাড়তে বাড়তে অসংখ্য বছর হয়। এর মাঝে ২০৪ বিলিয়ন বিলিয়ন বছর চলে যায়।এখন ককুসন্ধ, কোণাগমন ও কশ্যপ বুদ্ধের ৩টি অন্তরকল্প অতীত হয়ে গেছে। তাহলে সেই হিসেবে পৃথিবী সৃষ্টি হয়েছে ৬১৪ বিলিয়ন বিলিয়ন বছর আগে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *