আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

অপরে নিন্দা করলে কীভাবে জবাব দেবেন?

আমরা প্রায়ই অন্যের দোষ দেখলে মনের সুখে তাকে তিরস্কার করি। আবার নিজেরাও অমন তিরস্কারের মুখোমুখি হই মাঝে মাঝে। তখন হয়তো মন খারাপ করি। বুদ্ধ কিন্তু এরকম নিন্দার জবাব দেয়ার সুন্দর একটা উপায় দেখিয়ে গেছেন। আসুন বুদ্ধের শিখিয়ে দেয়া সেই উপায়টা একটু জেনে নিই।

ত্রিপিটকের দীর্ঘ নিকায়ের প্রথম সুত্রটি হচ্ছে ব্রহ্মজাল সুত্র। সেই সুত্রে বুদ্ধ ভিক্ষুদেরকে বলেছিলেন, “হে ভিক্ষুগণ, অন্যরা যদি বুদ্ধের, ধর্মের বা সঙ্ঘের নিন্দা করে, তাতে তোমাদের ক্ষুদ্ধ হওয়া, মেজাজ খারাপ করা, অথবা মনে মনে রাগ করা উচিত নয়। ক্ষুদ্ধ হলে, মেজাজ খারাপ করলে অথবা মনে মনে রাগ করলে তখন তোমাদেরই অন্তরায় (অর্থকথামতে, এখানে অন্তরায় মানে হচ্ছে ধ্যান ও মার্গফল লাভের অন্তরায়)। বুদ্ধকে, ধর্মকে বা সঙ্ঘকে নিন্দা করলে যদি তোমরা ক্ষুদ্ধ হও বা বেজার হও, তখন কি তোমরা জানতে পারবে অন্যদের কথাগুলো ঠিক না বেঠিক?”
“না, ভান্তে।”

বুদ্ধ এরপর বললেন, “হে ভিক্ষুগণ, বুদ্ধকে, ধর্মকে বা সঙ্ঘকে নিন্দা করলে সেখানে অসত্যকে অসত্য বলেই ব্যাখ্যা করা উচিত – ‘এটি অসত্য, এটি ভুয়া, এটি আমাদের মাঝে নেই।’ ”

এর ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে অর্থকথা বলছে, “তোমাদের বুদ্ধ সর্বজ্ঞ নয়, তোমাদের ধর্ম সুন্দরভাবে ব্যাখ্যাত নয়, তোমাদের সঙ্ঘ ঠিক পথে নেই” এমনটা শুনে চুপ করে থাকা উচিত নয়। তখন এভাবে বলা উচিত- “আপনারা যা বলছেন তা অসত্য। সেটা এই এই কারণে অসত্য, এই এই কারণে সেটা ভুয়া কথা। আমাদের বুদ্ধ সত্যিই সর্বজ্ঞ, ধর্ম সুন্দরভাবে ব্যাখ্যাত, সঙ্ঘ সঠিক পথেই আছে।”

অর্থকথামতে, কেউ যদি বলে, “আপনি দুঃশীল, আপনার গুরু দুঃশীল, আপনি এই এই কাজ করেছেন, আপনার গুরু এই এই কাজ করেছেন” তখন চুপ করে সহ্য করে থাকলে তাতে সন্দেহ দেখা দিতে পারে। তখন কেউ কেউ সন্দেহ করবে- হয়তো ওরা সত্যি বলছে, নাহলে চুপ করে থাকবে কেন? তাই সেক্ষেত্রে মনে ক্ষোভ না নিয়ে সেটাকে উপরোক্ত নিয়মে ব্যাখ্যা করা উচিত।

কিন্তু যদি আপনার নাম, জাত, বংশ, চেহারা, দৈহিক বৈশিষ্ট্য, কাজ, পেশা ইত্যাদি ধরে গালাগালি করে, তাহলে তাদেরকে গ্রাহ্য না করে চুপ করে সহ্য করে যাওয়া উচিত। কারণ এই নাম, বংশ, চেহারা, দৈহিক বৈশিষ্ট্য ইত্যাদির উপরে আপনার খুব একটা নিয়ন্ত্রণ নেই। সেগুলো অতীত কর্মফল মাত্র। সেগুলো অন্যরা পছন্দ না করলেও তাতে আপনার কিছু করার থাকে না। কাজেই সেটা নিয়ে কথা বাড়িয়ে লাভ নেই।

ইদানিং আমার পোস্টগুলোতে বিভিন্ন অশোভন কমেন্টস দেখতে পাই। সেগুলো অশ্লীল ভাষা হলে ডিলিট করে দিই। কিন্তু কতজন কমেন্ট করে, সবার কমেন্টস পড়ার তো আর সময় হয় না। তাই নিন্দা বা গালাগালি না করার জন্য সবার প্রতি আন্তরিক অনুরোধ রইল। আমরা এখানে ধর্মের সঠিক বিষয়গুলো ত্রিপিটক অনুসারে আলোচনা করব। কোনগুলো ভেজাল, কোনগুলো সঠিক সেগুলোও জানব। ধর্মালোচনাই চলবে, নিন্দা বা গালাগালি নয়। সবার প্রতি শুভকামনা রইল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *