আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

মাংস কিনে খেলে প্রাণিহত্যা সমর্থন হয়?

বৌদ্ধরা মাংস খায় কেন সেব্যাপারে আমি অনেক আগে একটা পোস্ট করেছিলাম। তাতে কয়েকজন প্রশ্ন তুলেছেন এরকম: আমরা মাংস খাই বলেই তো বাজারে মাংস বিক্রি হয়। ভিক্ষু শ্রামণেরা মাংস খায় বলেই তো মাংস পিণ্ডদান দেয়া হয়। আর এটা তো একটা ছোট বাচ্চাও বুঝে মাংস আসে প্রাণি থেকে। তাহলে কি মাংস খাওয়া প্রাণিহত্যা সমর্থন করার মত নয়? […]

ঝড়ে বক মরে, ফকিরের কেরামতি বাড়ে!

আজ ব্রহ্মজাল সুত্রটি পড়তে পড়তে ছোট্ট একটা মজার ঘটনা চোখে পড়ল। সেটা হচ্ছে এরকম- অতীতে ভারতের মথুরা রাজ্যে (বর্তমান উত্তর প্রদেশের মথুরা জেলায়) পাণ্ডুরাজা একবার তিনটা মুক্তা মুঠোয় লুকিয়ে জ্যোতিষীকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, বলো তো আমার হাতে কী? জ্যোতিষী তা শুনে এদিক ওদিক তাকাল। সে দেখল একটা টিকটিকি একটা মাছিকে ধরতে গিয়েও ধরতে পারল না। মাছিটা […]

এক মেয়ের সাতশ বছর বেঁচে থাকার কাহিনী

পশ্চিমা বিশ্বে এলিয়েন ও ইউএফও নিয়ে মাতামাতির শেষ নেই। এই তো দুয়েক মাস আগেও আমেরিকার নৌবাহিনী ইউএফওর একটা ভিডিও প্রকাশ করে হইচই ফেলে দিয়েছিল। সেই ইউএফও নাকি ভিনগ্রহের নভোযান। তাতে চড়ে নাকি এলিয়েন বা ভিনগ্রহের প্রাণিরা এই পৃথিবীতে আসে, মানুষদেরকে ধরে নিয়ে যায়। এরকম কত জল্পনা কল্পনা। কিন্তু আমি আপনাদেরকে এর থেকেও রোমাঞ্চকর একটা কাহিনী […]

একটি পুতুলের মৃত্যু

একবার অনাথপিণ্ডিকের নাতনীকে একটা পুতুল দিয়ে বলা হলো, এ হচ্ছে তোমার মেয়ে। একে নিয়ে খেলা কর গিয়ে। সে তখন সেই পুতুলটাকে সত্যিই তার মেয়ে বলে ধরে নিল। একদিন খেলার সময়ে পড়ে গিয়ে সেই পুতুল ভেঙে গেল। তখন মেয়েটি “আমার মেয়ে মারা গেছে” বলে কাঁদতে লাগল। ঘরের কেউই তাকে বুঝ দিতে পারল না। তাকে নিয়ে যাওয়া […]

টাকা দানের বিনয়সম্মত নিয়ম

আজ আমার পরিচিত একজন এসে ১০০ ডলার দিতে চাইল। সে বলল, ভান্তে, আমি জানি আপনি টাকা পয়সা রাখেন না। কিন্তু এই টাকা আপনার জন্যই পাঠানো হয়েছে। আপনি শুধু বলুন এই টাকা কার কাছে দেব। আমি পড়ে গেলাম বিপদে। বিনয়ের নিয়ম অনুসারে এমন প্রশ্নের সম্মুখীন হলে ভিক্ষুকে চুপ করে থাকতে হয়। নতুবা সরাসরি প্রত্যাখান করে দিতে […]

পালিতে দৈর্ঘ্য পরিমাপের রেফারেন্স

১ অণু = ৩৬ পরমাণু। ১ তজ্জারী = ৩৬ অণু। ১ রথরেণু = ৩৬ তজ্জারী। ১ লিক্খা = ৩৬ রথরেণু। ১ ঊকা = ৭ লিক্খা। ১ ধঞ্ঞমাস = ৭ ঊকা। ১ অঙ্গুল (আঙুল) = ৭ ধঞ্ঞমাস। ১ ৰিদত্থি (বিঘত) = ১২ অঙ্গুল। ১ রতন = ২ ৰিদত্থি। ১ যট্ঠি = ৭ রতন। ১ উসভ = […]

দেবতারাও অর্হৎকে চিনতে পারে না

অর্হৎকে চেনা কঠিন। যেমন মধ্যম নিকায়ের মহাসচ্চক সুত্রে বুদ্ধ বলেছেন, যখন তিনি বুদ্ধ হওয়ার জন্য কঠোর সাধনা করছিলেন তখন এক পর্যায়ে শ্বাসপ্রশ্বাস বন্ধ থাকা অবস্থায় দেহের প্রচণ্ড জ্বালাযন্ত্রণায় তিনি বসা অবস্থাতেই অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে যান। তা দেখে কোনো কোনো দেবতা মনে করেছিল সিদ্ধার্থ মারা গেছেন। আবার কিছু কিছু দেবতা বলাবলি করছিল, সিদ্ধার্থ অর্হৎ হয়ে […]

অরণ্যচারী ভিক্ষুদেরকে দেবতারাও মিস করে থাকে!

কয়েকজন ভিক্ষু বর্ষার তিন মাস অরণ্যে কাটিয়ে চলে গেলে তখন তাদেরকে ভীষণ মিস করছিল সেই অরণ্যে বসবাসকারী এক বৃক্ষদেবতা। তাই সে বলেছিল, আজ আমার মন উতলা হচ্ছে বহু শূন্য আসন দেখে। সেই বিচিত্র ধর্ম আলাপকারী গৌতমের শিষ্যরা কোথায় চলে গেল? তখন অন্য এক দেবতা তাকে বলল, কেউ গেছে মগধে, কেউ গেছে কোশল রাজ্যে, কেউ গেছে […]

দেবতারা সত্যিই পূজা গ্রহণ করে!

অনেকেই দেবতা আছে বলে বিশ্বাস করে না। তারা মনে করে গাছের গোড়ায় যে পূজা দেয়া হয় সেগুলো অর্থহীন। বুদ্ধ কিন্তু দেবতাকে পূজা করতে নিষেধ করেন নি। দীর্ঘ নিকায়ের মহাপরিনির্বাণ সুত্রে গৃহীদের জন্য যে সপ্ত অপরিহানীয় ধর্মের কথা বলা হয়েছে সেখানেও কিন্তু বুদ্ধ প্রচলিত পূজার স্থানগুলো বন্ধ না করতে উপদেশ দিয়েছেন। কিন্তু দেবতাদেরকে পূজা দিয়ে কী […]

জাগ্রতদের মধ্যে ঘুমন্ত কে?

জাগ্রতদের মধ্যে ঘুমন্ত কে?ঘুমন্তদের মধ্যে জাগ্রত কে?কে এটা জানে? কে এটা বলতে পারে? এই প্রশ্নটা করেছিল এক বৃক্ষদেবতা। তার উত্তরে আপনারা অনেকেই অনেক উত্তর দিয়েছেন। তবে শুনে নিন হিমালয়ের এক ঋষির উত্তর। সেই ঋষি হিমালয়ের পাদদেশে তপস্যা করত। সে কেবল দাঁড়িয়ে ও হাঁটাহাঁটি করে দিন যাপন করত। রাতেও না ঘুমিয়ে সারারাত হাঁটাহাঁটি করে কাটিয়ে দিত। […]