আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

একজন ভিক্ষুর ন্যুনতম কী কী শিক্ষা করা উচিত?

ভিক্ষুর সাধারণত যেকোনো একজন গুরুর আশ্রয়ে পাঁচ বছর ধরে থাকতে হয়। পাঁচ বছর পরে যদি দক্ষ হয়, তাহলে সে গুরুর আশ্রয় ছাড়া স্বাধীনভাবে যেখানে খুশি থাকতে পারে। কিন্তু পাঁচ বছরেও দক্ষ না হলে যতকাল যাবত দক্ষ না হয় ততকাল গুরুর আশ্রয়ে থাকতে হয়। সারাজীবন দক্ষ না হলে সারাজীবন গুরুর আশ্রয়ে থাকতে হয়। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে- […]

চতুভাণৰার (মূল পরিত্রাণ সুত্র সংগ্রহ)

পরিত্রাণ সুত্র শ্রবণ অনুষ্ঠান বৌদ্ধদের মধ্যে প্রচলিত একটি বিষয়। অতি প্রাচীনকাল থেকে বৌদ্ধভিক্ষুরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পরিত্রাণ সুত্র আবৃত্তি করে আসছে। উদাহরণস্বরূপ বুদ্ধ বৈশালীতে রতনসুত্র দেশনা করে সমস্ত অন্তরায় উপদ্রব দূর করে দিয়েছিলেন। আয়ুবর্ধন কুমারের মৃত্যুদশা দূর করার জন্য সাতদিন ধরে পরিত্রাণ সুত্র শ্রবণের উপদেশ দিয়েছিলেন। এভাবে বুদ্ধের জীবদ্দশাতেই আমরা অনেকবার পরিত্রাণ সুত্রের প্রচলন দেখতে পাই। […]

সিযা কুসলং ধম্মং – এর ব্যাখ্যা

আমার কয়েকবার দাহক্রিয়ায় যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। সেখানে ভিক্ষুরা ‘সিযা কুসলং ধম্মং …সিযা অকুসলং ধম্মং… সিযা অব্যাকতং ধম্মং… ‘ এই তিনটা অংশ পট্ঠান থেকে পাঠ করে থাকে। আমি জানি না কেন সেটা পাঠ করা হয়। মানুষ মারা যাওয়ার সাথে পট্ঠানের এই অংশটির সম্পর্ক কী তা আমার কাছে বোধগম্য নয়। সে যাই হোক, আজ একজন বললো তার […]

ত্রিপিটকধরদের নিয়ে কিছু তথ্য

ত্রিপিটকধরদের নিয়ে বাংলাদেশের বৌদ্ধদের মধ্যে কৌতুহলের সীমা নেই দেখছি। তাই এব্যাপারে কিছু তথ্য দিলাম। ত্রিপিটকধর নির্বাচন পরীক্ষা (Tipitakadhara TipitakaKovida Selection Examination) হচ্ছে মায়ানমারের সর্বোচ্চ ধর্মীয় পরীক্ষা। এর ৭০তম ত্রিপিটকধর নির্বাচন পরীক্ষা শুরু হয়েছিল গত ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে। মোট ৩৩ দিন ধরে এই পরীক্ষা চলে। শেষ হয় ২৭ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে। এভাবে প্রতিবছর ৩৩দিন ধরে […]

আনন্দ ভান্তের আত্মত্যাগের কাহিনী

আনন্দ ভান্তে বুদ্ধের প্রতি প্রচণ্ড নিবেদিতপ্রাণ ছিলেন। তিনি এমনকি নালাগিরি হাতির সামনে দাঁড়িয়ে নিজের জীবন দিয়ে হলেও বুদ্ধকে বাঁচাতে চেয়েছিলেন। এর কাহিনীটা হচ্ছে এরকম। নালগিরি হাতিকে দমনের দিনে ভোররাতেই বুদ্ধ জানলেন, আজ নালাগিরি দমনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে চুরাশি হাজার সত্ত্বের ধর্মজ্ঞান লাভ হবে। তাই বুদ্ধ সকালেই আনন্দকে বললেন, আজ রাজগৃহের চারদিকে আঠারটি মহাবিহারের সমস্ত ভিক্ষুকে […]

বুদ্ধের ৩২টি মহাপুরুষ লক্ষণের ব্যাপারে ব্রাহ্মণেরা জানল কেমন করে?

সিদ্ধার্থ যখন জন্মেছিলেন তখন তার মহাপুরুষ লক্ষণগুলো দেখে ব্রাহ্মণেরা বলে দিয়েছিল এই ছেলে হয় চক্রবর্তী রাজা হবে, নয়তো বুদ্ধ হবে। কথা হচ্ছে, ব্রাহ্মণেরা এই মহাপুরুষ লক্ষণগুলো কোত্থেকে শিখল? মঙ্গল সুত্রের অর্থকথায় বলা হয়েছে- জগতে বুদ্ধ উৎপন্ন হওয়ার এক হাজার বছর আগে শুদ্ধাবাস ব্রহ্মলোকের দেবতারা তা জানতে পারে। তখন তারা ব্রহ্মঅলঙ্কারে সেজেগুজে ব্রহ্মাপাগড়ি মাথায় দিয়ে খুশিতে […]

প্রকৃত উপাসক উপাসিকা কারা?

বর্তমানে অনেকেই প্রশ্ন করে, প্রকৃত উপাসক উপাসিকা কাদেরকে বলা যাবে? বুদ্ধ অঙ্গুত্তর নিকায়ের চণ্ডাল সুত্রে (অঙ্গুত্তর নিকায়.৫.১৭৫) বলেছেন, যে শ্রদ্ধাহীন হয়, দুঃশীল হয়, মিথ্যাবিষয়ে কৌতুহলী হয়, কুশলকর্মের দিকে খেয়াল না করে মঙ্গল নিয়ে কৌতুহলী হয় (অর্থাৎ মঙ্গলসুত্রের আটত্রিশ প্রকার মঙ্গলের দিকে মন না দিয়ে সাধারণ লোকজনের মতোই সেও ভাবে, গরু দেখলে মঙ্গল, কাক দেখলে অমঙ্গল, […]

উপাসকের পেশা কেমন হওয়া উচিত?

ত্রিরত্নের উপাসক বা উপাসিকা হলে তার মিথ্যাবাণিজ্য ত্যাগ করা উচিত। বুদ্ধ বলেছেন, ভিক্ষুগণ, উপাসকের পাঁচ প্রকার বাণিজ্য করা উচিত নয়। অস্ত্রবাণিজ্য, প্রাণিবাণিজ্য, মাংসবাণিজ্য, মদবাণিজ্য, বিষবাণিজ্য (অঙ্গুত্তর নিকায়.৫.১৭৭)। এখানে অস্ত্রবাণিজ্য মানে হচ্ছে অস্ত্রশস্ত্র বিক্রি করা। প্রাণিবাণিজ্য মানে হচ্ছে মানুষ বিক্রি করা। মাংসবাণিজ্য মানে হচ্ছে শুয়োর, হরিণ ইত্যাদি বিভিন্ন গৃহপালিত প্রাণি পালন করে বিক্রি করা। সেগুলোকে জবাই […]