আমার ফেসবুকের লেখাগুলো – My facebook Writings

স্বাধীন চিন্তা ও বৌদ্ধধর্ম

বারুক স্পিনোজা (Baruch Spinoza) ছিলেন সপ্তদশ শতাব্দীর ডাচ দার্শনিক। তার একটা উক্তি আমাকে খুব ভাবিয়ে তুলেছে। ধরা যাক আকাশে একটা ঢিল ছুঁড়ে মারা হয়েছে। এখন ঢিলটির যদি সেই মুহুর্তে চিন্তা করার মতো ক্ষমতা থাকতো তাহলে সে নিশ্চয়ই ভাবত, আরে ! আমি তো সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে ছুটে চলেছি! অথচ তার গতিপথ যে আগে থেকেই নির্ধারিত হয়ে আছে সেটা সে জানেই না।

সিদ্ধার্থের ক্ষেত্রেও আমরা দেখি, চারটি নিমিত্ত দেখে তিনি গৃহত্যাগ করেন। মনে হয় যেন তিনি সেই নিমিত্তগুলো দেখে তবেই গৃহত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। অথচ সেগুলো সবই হচ্ছে একধরনের পূর্বনির্ধারিত। সকল বোধিসত্ত্বই এধরনের নিমিত্ত দেখে গৃহত্যাগ করেন।

বৌদ্ধমতে, কোনোকিছু হতে হলে কিছু কারণ উপস্থিত থাকতে হবে। কারণ বিনা কার্য হয় না। তাই সাধারণ যুক্তিতে বলা যায়, তার গৃহত্যাগের সিদ্ধান্তের পিছনেও অবশ্যই এই চারিনিমিত্ত ছিল প্রধান কারণ। অথচ তিনি যে এমন গৃহত্যাগের সিদ্ধান্ত নেবেন তা চারি অসংখ্য কল্প আগেই দীপঙ্কর বুদ্ধ ভবিষ্যদ্বাণী করে গিয়েছিলেন। এভাবে যেন মনে হয় সবই সম্ভাবনার খেলা। চার নিমিত্ত দেখলে গৃহত্যাগ করবেন। নাহলে গৃহত্যাগ করবেন না। এ তো পিওর ম্যাথমেটিক্স! এগুলো থেকেই তো একটা ফর্মূলা বের করে ফেলা যায়। আসুন আমরা কার্যকারণ নীতির গাণিতিক সুত্র বের করার কাজে নামি। বলা তো যায় না, নোবেল প্রাইজ পাওয়া যেতে পারে। তা না পেলেও ভবিষ্যতে প্রতিসম্ভিদা লাভের সংস্কার অন্তত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *